জ্ঞান বিজ্ঞানে এগিয়ে থাক, নিজেকে প্রমান কর

Saturday, 12 , October, 2019

উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে করণীয়।

Written by jobaer , 130 Views, Date : 12 Oct, 19

১২০/৮০ মিলিমিটার পারদ প্রাপ্তবয়স্ক মানুষের স্বাভাবিক রক্তচাপ। ১৪০/৯০ মিলিমিটারের বেশি রক্তচাপ যদিহয় তাহলে তাকে ‘উচ্চ রক্তচাপ’ বলা যায়। বয়স বৃদ্ধি উচ্চ রক্তচাপের অন্যতম ঝুঁকি। তবে যাঁদের হাঁটাহাঁটি বা ব্যায়াম করার অভ্যাস কম,যাঁদের ওজন বেশি, ধূমপান করেন, যাঁরা চর্বিজাতীয় খাবার ও লবণ বেশি খান, তাঁদের উচ্চ রক্তচাপ হওয়ার সম্ভাবনা বেশি। পারিবারিক ইতিহাসও একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। বেশির ভাগ ক্ষেত্রে এর কোনো লক্ষণ থাকে না। তবে উচ্চ রক্তচাপ থাকার কারণে স্ট্রোক, চোখের ক্ষতি ,কিডনি বিকল ইত্যাদি সমস্যা হতে পারে। তাই উচ্চ রক্তচাপকে বলা হয় ‘নীরব ঘাতক’।
উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রাখতে চিকিৎসকের পরামর্শমতো ওষুধ সেবন করতে হয়। তবে ওষুধ সেবনই রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণের একমাত্র উপায় নয়। জীবনযাপনের ধরনও রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে বড় ভূমিকা রাখতে পারে। আপনি যদি উচ্চ রক্তচাপের রোগী হন তবে এখন থেকেই কিছু পরিবর্তন আনুন।

তেল-চর্বিজাতীয় খাবার খান কম ,নিয়মিত ব্যায়াম রক্তচাপ কমাতে সাহায্য করে, ফলমূল আর শাকসবজি রক্তচাপ কমাতে কার্যকর ।

শরীরের অতিরিক্ত ওজন কমাবেন :

আপনার রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রাখার জন্য ওজন কমাতেই হবে। নিজের কোমরের মাপ খেয়াল রাখুন। কোমর অঞ্চলের ওজন বেশি হলে তা রক্তচাপ বাড়ায়। পুরুষদের ক্ষেত্রে ৪০ ইঞ্চির বেশি কোমর হলে আর মহিলাদের ক্ষেত্রে ৩৫ ইঞ্চির বেশি হলে তা উচ্চ রক্তচাপ বাড়ায়।

নিয়মিত ব্যায়াম করুন:

নিয়মিত ব্যায়াম রক্তচাপ কমাতে সাহায্য করে। প্রতিদিন ৩০ মিনিটের ব্যায়াম রক্তচাপ কমাতে পারে প্রায় ৫ থেকে ৮ মিলিমিটার। হাঁটা, জগিং, সাইক্লিং—এ সব ব্যায়ামই কার্যকর। একসঙ্গে ৩০ মিনিট করতে না পারলে দশ মিনিট, দশ মিনিট করে দিনে তিনবার হাঁটলেও উপকার পাওয়া যাবে।

উচ্চ রক্তচাপের রোগীরা কি খাবেন?

আপনার খাদ্যে প্রচুর তাজা ফল এবং সবজি যোগ করুন। ফলমূল আর শাকসবজি খান বেশি বেশি। তেল-চর্বিজাতীয় খাবার খান কম। পটাসিয়াম সমৃদ্ধ খাবার অন্তর্ভুক্ত করুন কারণ এটি রক্তচাপের উপর সোডিয়ামের প্রভাবকে হ্রাস করতে সহায়তা করে। ফলমূল আর শাকসবজিতে আছে প্রচুর পটাশিয়াম। পটাসিয়ামে সমৃদ্ধ খাবারগুলি হল কলা, অ্যাভোকাডো, পালং শাক, মাশরুম, শশা, ব্রোকলি, কমলালেবু এবং মিষ্টি আলু।পটাশিয়াম রক্তচাপ কমাতে কার্যকর। লবণ খাবেন পরিমিত। তরকারিতে দেওয়া লবণই যথেষ্ট। পাতে বাড়তি লবণ নেওয়া পরিহার করুন। লবণ দিয়ে প্রক্রিয়াজাত খাবার যেমন লবণাক্ত মাছ, চিপস, ক্র্যাকার্স, নোনতা বিস্কুট ইত্যাদি কমান। বরই, তেঁতুল, পেয়ারা, আমড়া, সালাদও কাঁচা লবণ দিয়ে খাওয়ার অভ্যাস ত্যাগ করুন।

ধূমপান বর্জন করুন:

ধূমপানে রক্তচাপ বাড়ে। ধূমপান শেষ করার পরেও বেশ কিছু মিনিট ধূমপান আপনার রক্তচাপ বাড়ায়। পরোক্ষ ধূমপায়ীদের ক্ষেত্রেও একই সমস্যা হতে পারে। সুতরাং আপনার শরীরের রক্তচাপ স্বাভাবিক মাত্রা পুনরুদ্ধার করতে ধূমপান ছাড়ুন।

নিয়মিত রক্তের চাপ পরীক্ষা করুন :


রক্তচাপ নিয়মিতভাবে মেপে দেখুন। উচ্চ রক্তচাপের কোনো উপসর্গ নেই। তাই নিয়মিত পরিমাপ করার কোনো বিকল্প নেই।

নিয়মিত ওষুধ সেবন করুন:
চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী ঔষধ সেবন করুন । রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে থাকলে বা কম থাকলে ওষুধ খেতে হবে না এমন ধারণা ভুল। চিকিৎসক প্রতিটি রোগীর প্রয়োজন ও পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া বিবেচনা করে ওষুধ দিয়ে থাকেন।

Write your comments here

comments